বরিশালে সড়ক অবরোধ করে বাসদের বিক্ষোভ

শেয়ার করুনঃ

নাগরিক রিপোর্ট : করেনা সংক্রামন বিস্তার রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন এবং আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার নিশ্চয়তাসহ ৮ দফা দাবীতে বরিশালে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ)। দলটির বিপুল সংখ্যক নারীসহ কয়েশত নেতাকর্মী বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত একঘন্টা নগরীর প্রানকেন্দ্র সদর রোড অশ্বিনী কুমার হলের সামনে সড়ক অবরোধ করে রাখেন। এ সময় ওই সড়ক দিয়ে যানবহন চলাচল বন্ধ থাকে।
কর্মসূচীর সমাপনি বক্তৃতায বাসদের জেলা আহ্বায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবিব রুমন বলেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের দাবী মেনে নেয়া না হলে হরতালসহ কঠিন কর্মসূচী দেবে বাসদ। পরে বাসদ নেতাকর্মীদের বিক্ষোভ মিছিল নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করেছে।
পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার আগেই বাসদ নেতাকর্মীরা লাল পতাকা নিয়ে অশ্বিনী কুমার হলের সামনে অবস্থান নেন। বেলা ১১টায় সংলগ্ন সদর রোড দখল করে সকল ধরনের যানবহন চলাচল বন্ধ করে দেন তারা। অবরোধের শুরুতে পুলিশ বাঁধা দিলেও বাসদ নেতাকর্মীদের অনঢ় অবস্থানের মুখে তারা পিছু হটে।

সড়ক অবরোধ করে রেখেছেন বাসদ নেতাকর্মীরা


বাসদের জেলা সদস্য সচিব ডা. মণীষা চক্রবর্তী বক্তৃতায় বলেন, বরিশাল বিভাগের ৬ জেলার জন্য মাত্র একটি পিসিআর মেশিণ স্থাপন করা হয়েছে শেরেবাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় হাসপাতালে। দক্ষ টেকনিশিয়ান না থাকায় সেখানে যাওয়া রোগীরা হেনস্থা হচ্ছেন। যথাযথ চিকিৎসা পাচ্ছেন না সাধারন মানুষ। গরীবের ত্রানে চলছে লুটপাট। করোনা সংকট নিয়ে ক্ষমতাসীন দলকে কোন ধরনের বানিজ্য করতে দেয়া যাবেনা বলে হুশিয়ারী করেন তিনি। ডা. মণীষা অভিযোগ করেন, বুধবার সংবাদ সম্মেলন ৮ দফা দাবী উপস্থাপন এবং সড়ক অবরোধ কর্মসুচী ঘোষণা করার পর তাদের ওপর বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছিল। চোখ রাঙ্গানী উপেক্ষা করে তারা এ কর্মসূচী সফল করেছেন।

অবরোধে পুলিশের বাঁধা


জেলা বাসদ আহবায়ক প্রকৌশলী ইমরান হাবীব রুমনের সভাপতিত্বে অবরোধ কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তৃতা করেন জাসদ বরিশাল মহানগর সাধারন সম্পাদক আসাদুল হক মুন্না, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সম্পাদক অধ্যাপক দুলাল মজুমদার। এছাড়া আরও বক্তব্য দেন বাসদের শ্রমীক ফ্রন্ট নেতা শহিদুল ইসলাম, জোহরা রেখা, সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিল শ্রমিক নেতা নুরুল হক প্রমুখ।
বাসদের ৮ দফা দাবীগুলো হচ্ছে- পিসিআর ল্যাব বৃদ্ধি করে প্রতিদিন কমপক্ষে ১ হাজার টেষ্ট নিশ্চিত করা, করোনা রোগীদের জন্য ১ শয্যা ও ১০০ ্আইসিইউ বেড চালু, করোনা রোগীদের বিশেষ অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস চালু, বাড়ি বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ, লকডাউন হওয়া বাসা-বাড়িতে খাবার পৌছে দেয়া, চিকিৎসক-সাংবাদিক-পুলিশসহ জরুরী সেবায় নিয়োজিতদের ঝুকিভাতা প্রদান, এনজিও’র কিস্তি আদায় বন্ধ ও বাড়ি-মেস ভাড়া মওকুফ, ভুতুরে বিদ্যুৎ বিল প্রত্যাহারসহ সকল বিল মওকুফ এবং শ্রমিক-কর্মচারীদের ছাটাই বন্ধসহ বকেয়া বেতন প্রদান।##

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *