বিএনপি নেতাদের চাপে বরিশালে ছাত্রদলের নেতৃত্ব গঠন বাধাগ্রস্থ

শেয়ার করুনঃ

নাগরিক রিপোর্ট: বরিশালে এক থেকে দেড় যুগ পাড় হওয়া ছাত্রদলের তৃনমুল নেতৃত্ব গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্র। ইতোমধ্যে আগ্রহীদের আবেদনও চাওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের নির্দেশনা অনুযায়ী এ বিষয়ে স্থানীয় বিএনপি ও এমপি প্রার্থীর মতামত চাওয়া হয়েছে। এ সুযোগে জেলার ১০ উপজেলায়ই বিএনপি নেতারা তাদের অনুসারীদের বসাতে পাল্টাপাল্টি তালিকা তৈরি করেছে। জেলা ছাত্রদলের তথ্যমতে, বরিশালের ১০ উপজেলা, ২২ কলেজ এবং ৬ পৌর ছাত্রদলের কমিটি গঠনে পাল্টাপাল্টি তালিকা আশা শুরু করেছে। প্রতিটি উপজেলায় বিএনপি নেতারা নিজেস্ব কর্মীদের শীর্ষ পদে বসানোর প্রস্তাব করায় গ্রæপিং এর কারনে অনেক ত্যাগী নেতার বাদ পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। এমনকি বিএনপি নেতারা জেলা ছাত্রদলকে ফোনেও কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে সতর্ক করছে। এ অবস্থায় বিএনপি নেতাদের চাপে তৃনমুলের কমিটি গঠন বাধাগ্রস্থ হচ্ছে বলে ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ মনে করেন।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি গঠন নিয়ে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে স্থানীয় বিএনপির মধ্যে। সেখানকার এমপি প্রার্থী আবুল হোসেন খান ২১ সদস্যের একটি তালিকা জেলা ছাত্রদলকে দিয়েছেন। তবে উপজেলা বিএনপির সদস্য মো: খলিলুর রহমান সিকদার বলেন, ওই তালিকায় যাদের নাম দিয়েছেন তা বাদ দিয়েছেন আবুল হোসেন। তাই তারা ছাত্রদলের টিম প্রধান জাকির হোসেনের সাথে কথা বলে আর একটি তালিকা দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে বিএনপি নেতা আবুল হোসেন খান বলেছেন, তালিকা ছোট কিন্তু লোক বেশি। তাই সকলের নাম দেয়া যায়নি।

উজিরপুর উপজেলা ছাত্রদলের একটি তালিকা পাঠিয়েছেন এমপি প্রার্থী এস সরফুদ্দিন সান্টু। এই তালিকার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়েছে এলাকায়। জানা গেছে, সান্টু তার নিজেস্ব কর্মী দ্বারা এই তালিকা করেছেন।

মেহেন্দীগঞ্জ ও হিজলা উপজেলা ছাত্রদলের তালিকা প্রদান করেছেন সাবেক এমপি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ। অভিযোগ রয়েছে, প্রস্তাবিত কমিটির কেউ কেউ ছাত্রদলের সাথে সম্পৃক্ত নন। অনেকে আবার ত্যাগী হলেও স্থান দেয়া হয়নি। জানা গেছে, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি রাজিব আহসান এর বাড়ি মেহেন্দীগঞ্জ। তার অনুসারীদের ওই তালিকায় রাখা হয়নি। তবে বিএনপি নেতা ফরহাদ বলেন, স্থানীয় বিএনপি যে তালিকা প্রদান করেছে তাতে তিনি সুপারিশ করেছেন। যারা বাদ পড়েছেন তাদের পূর্নাঙ্গ কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

এদিকে গৌরনদী ও আগৈলঝাড়ায় সাবেক এমপি জহির উদ্দিন স্বপন এবং উত্তর জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান পৃথক তালিকা করতে যাচ্ছে উপজেলা ছাত্রদলের। এ নিয়ে সেখানে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। মুলাদী উপজেলা ছাত্রদলের একটি তালিকা অ্যাড. জয়নাল আবেদিন পাঠিয়েছে জেলা ছাত্রদলের কাছে। তবে উপজেলা বিএনপির সভাপতি ছত্তার খান এতে আপত্তি জানিয়ে পাল্টা তালিকা দিচ্ছে বলে জানা গেছে।

বরিশাল জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল রাঢ়ী বলেন, তারা ৪/৫টি উপজেলার তালিকা পেয়েছেন। কিন্তু সবটিতেই বিচ্যুতি রয়েছে। স্থানীয় বিএনপিতে সমন্বয় না হওয়ায় একাধিক তালিকা এসেছে। তিনি বলেন, ছাত্রদলের তৃনমুলের এই কমিটি গঠনে বিএনপি নেতাদের চাপ আসলেও টাকা-পয়সা নিয়ে নেতৃত্ব সৃস্টি হতে দিবেন না তারা।

জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মাহফুজুল আলম মিঠু জানান, বাকেরগঞ্জে সাবেক এমপি আবুল হোসেন যে তালিকা দিয়েছেন তাতে বিতর্ক রয়েছে। ত্যাগী ছাত্রনেতারা বাদ পড়ছে। হিজলা-মেহেন্দীগঞ্জেও সাবেক এমপি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদের প্রেরিত তালিকা নিয়ে বিতর্কের সৃস্টি হয়েছে। মুলাদীতে পাল্টাপাল্টি তালিকা দিয়েছে। গৌরনদী ও আগৈলঝাড়ায় স্বপন ভাই ও কুদ্দুস ভাই ফোন করে কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে সতর্ক করেছেন। উজিরপুরে সান্টু ভাই তাদের মত করে তালিকা তৈরি করেছেন। ওই তালিকার বিরুদ্ধে মিছিল হয়েছে। সদর উপজেলার কমিটির বিষয়ে সরোয়ার ভাই ও চাঁন ভাই ফোন করেছেন। তিনি বলেন, কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে চাপের মধ্যেই আছেন। আইনশৃংখলা বাহিনীও চাপে রেখেছে। উপজেলার মুরব্বি নেতাদের কাছ থেকে নানা সুপারিশ আসছে। তিনি মনে করেন, ছাত্রদলের কমিটি গঠনে বিএনপির এবারই শেষ চাপ।

জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম শাহিন বলেন, জেলা ছাত্রদলের নেতারা কমিটি গঠন করতে গিয়ে একুট চাপে পড়েছে শুনেছেন। আসলে এটা ওদের জন্য সমস্যা। যদি এভাবে মুরব্বি সংগঠনের চাপ আসে তাহলে কেন্দ্রের সহযোগিতা নিতে হবে। তিনি বলেন, ছাত্রদলের কমিটিতে বিএনপির হস্তক্ষেপ উচিৎ নয়।

এব্যাপারে বিএনপির যুগ্ন মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার বলেন, ছাত্রদলের মধ্যে সাংগঠনিক প্রক্রিয়া গনতান্ত্রিকভাবে গঠনের চেস্টা চলছে। রাজপথে যারা আছে তারা কঠিন নীতিমালায় পড়ে বাদ পড়ে যাচ্ছে। যেকারনে তিনি বরিশাল ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দকে বলেছেন, সমন্বয় করে ত্যাগীদের মুল্যয়ন করতে। তিনি বলেন, স্থানীয় বিএনপি ও এমপি প্রার্থীরা তালিকা দিলেই তা বাস্তবায়ন করা যাবে না। বিষয়টি আমাদের জেষ্ঠ্য চেয়ারম্যান তারেক রহমান পর্যবেক্ষন করছেন। চাপ দিয়ে ছাত্রদলের কমিটি করা এখন কঠিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *